১১ টি সৌন্দর্য বৃদ্ধির গোপনীয়তা যা গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রি প্রকাশ করে না…

0
9822

আপনি কি কখনও বিস্ময়ের সাথে ভেবেছেন যে সেলিব্রিটিরা সবসময় তাদের বয়স এবং ত্বকের সমস্যাগুলোর প্রতি দৃষ্টিপাত করেনা কেন? আমরা সবসময় তাদেরকে কত ঈর্ষা করি, তাই না?

যাইহোক, আমরা বুঝতে পারি যে তাদের প্রত্যেক পর্যায়ে সৌন্দর্য যত্নের জন্য সৌন্দর্য বিশেষজ্ঞ এবং ব্যক্তিগত সৌন্দর্য যত্ন সেনাবাহিনীর একটি পুরো প্যানেল আছে । কিন্তু, এখানে কি লক্ষ্য করা প্রয়োজন যে সৌন্দর্য যত্ন রুটিন মৌলিক রুপে হয় ? সহজ এবং বুদ্ধিদীপ্ত । আপনি তাদের দ্বারা দেওয়া ফলাফল এবং তাদের দ্বারা প্রদান করা উপাদান আশানুরূপ নাও হতে পারে । শুধু আপনি যদি দৈনিক ত্বক যত্নের সাধারণ রুটিনটি অনুসরণ করেন এবং নির্দিষ্ট সময় উৎসর্গ করেন তাহলেই হবে ।

এটা সম্পর্কে শুধু নিছক কথা বলা আপনাদের সাহায্য করবে না, তাই আমি আজ আপনাদের জন্য এখানে কিছু অলৌকিক ঘটনা করতে পারে এমন অলৌকিক কিছু জিনিস আপনাদের জন্য এনেছি যা আপনাদের শরীরের আমূল পরিবর্তন করতে পারবে। নম্বর ১, ২ এবং ৩ তে উল্লিখিত রহস্যের দিকে মনোযোগ দিন, যা জাদুর কাঠির মতো কাজ করতে পারে। আসুন নীচের ভাগে সামান্য সৌন্দর্যের গোপন তথ্য অন্বেষণ এবং তাদের ব্যবহার করার চেষ্টা করি ।

১। সানস্ক্রীনের উপকারিতা উপেক্ষা করবেন না

সুন্দর এবং স্বাস্থ্যকর ত্বক সানস্ক্রিন নিয়মিত ব্যবহার ছাড়া অর্জন করা যাবে না। ম্যাডোনার সঙ্গে কাজ করে একটি প্রসাধনী বিশেষজ্ঞ মেমি ম্যাকডোনাল্ড বলেছেন, আপনি এই নিয়ম অবহেলা যদি করেন তাহলে অন্য কোন প্রচেষ্টা অর্থহীন হতে পারে । তিনি SPF ৩০ যুক্ত সানস্কিন ক্রিম ব্যবহারের পরামর্শ দেন, দিনের মধ্যে এটি বার বার প্রয়োগ করা দরকার ।

২। ঘাড় এর যত্ন নিন

ঘাড় একটি মহিলার শরীরের অংশ, যা তার মালিকের বয়স প্রায় বলে দিতে পারে, তাই এটা ভালভাবে যত্ন নেওয়া খুবই দরকার । ঘাড়ের ত্বক পাতলা হয় যেমন আপনার মুখের ত্বক, তাই তার যত্ন নেওয়া প্রয়োজন। আপনার

৩। আপনার ত্বককে বেশি শুষ্ক করে ফেলবেন না!

বেশিরভাগ অ্যান্টি-স্পট ক্রিমগুলিতে বেনজোয়াল পেরোক্সাইড থাকে যা ত্বককে শুকিয়ে দেয়, ত্বকের তাপ বৃদ্ধি করে এবং সিবমের উৎপাদন বাড়ায়। অ্যালকোহল অনুরূপভাবে কাজ করে, তাই আপনি দাগ থেকে পরিত্রাণ পাবেন না। ডঃ হ্যারল্ড লেন্সার উপদেশ দেন যে এক্সফোলিয়েট করতে স্যালিসিলিক বা ল্যাকটিক এসিড ব্যবহার করুন ।

৪। বরফের টুকরো ঘোসুন মুখে

চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ আভা শাম্বান কালো তৈলাক্ত রঙ প্রতিরোধ করার জন্য একটি বরফের টুকরো কয়েক সেকেন্ড মুখে ঘসার উপদেশ দেন । এই সহজ উপায় আপনার ত্বকের রক্তচলাচল সঠিক করবে এবং আপনার ত্বক উজ্জ্বল হয়ে উঠবে ।

৫। আপনার রুপচর্চার পণ্যগুলি সঠিকভাবে সংরক্ষণ করুন

ডাঃ ডেবরা জালিম্যান বাথরুমে আপনার সৌন্দর্য আইটেম সংরক্ষণের বিরুদ্ধে সতর্ক করেন, কারণ গরম এবং আর্দ্র বাতাস তাদের আরো দ্রুত মেয়াদের তারিখ শেষ করে দেয়। আপনার প্রায়ই ব্যবহার না করা ক্রিম এবং অন্যান্য সৌন্দর্য আনুষাঙ্গিক ফ্রিজের মধ্যে সংরক্ষণ করা উচিত।

৬। আপনার মুখ স্পর্শ করার আগে আপনার হাত পরিষ্কার রাখুন

ডাঃ ল্যান্সার বলছেন যে, আপনার মুখ নোংরা হাত দিয়ে স্পর্শ করবেন না। যদি আপনার ত্বক শুষ্ক বা স্বাভাবিক হয় তাহলে প্রতি সপ্তাহে একবার  অন্তত বালিসের কভার পরিবর্তন করুন আর যদি আপনার ত্বক তৈলাক্ত হয় তাহলে ২-৩ দিন অন্তর বালিসের কভার পালটান । সময় সময়ে আপনার স্মার্টফোনের স্কিনও পরিষ্কার করুন।

৭। আপনার ত্বক যদি ব্রণ প্রবণ হয়, তাহলে ত্বকে স্ক্রাব ব্যবহার করবেন না

ক্রিস্টি কিড, বেভারলি হিংস্র একজন ত্বক বিশেষজ্ঞ, যিনি বলেছেন আপনার যদি ব্রণ থাকে তাহলে কোন স্ক্রাব, স্পঞ্জ বা ব্রাশের ব্যবহার না করাই ভালো । এতে শুধুমাত্র প্রদাহ বাড়ে। সব ত্বকই পরিষ্কার করা দরকার সাবান ছাড়াই। রেডনিং এবং প্রদাহ কমাতে স্পটগুলিতে জল এবং অ্যাসপিরিন পেস্ট প্রয়োগ করুন।

৮। ঘুমতে যাওয়ার আগে ব্রা খুলে ঘুমান

একটি ব্রা, বিশেষ করে একটি টাইট বা ওয়্যার্ডযুক্ত, আপনার রক্তসংবহন বাঁধাপ্রাপ্ত করতে পারে এবং স্বাস্থ্য সমস্যাও বাড়াতে পারে । উপরন্তু, এটি চামড়া জ্বালা, অস্বস্তি, স্ট্রাপ এবং নীচের চামড়ার কালো দাগ ফেলে দিতে  পারে।

৯। চোখের নিচে ম্যাসাজ করুন

ওলে হেনরিকসেন পরামর্শ দেন যে, চোখের নিচে lymph নিষ্কাশন হ্রাসের জন্য ম্যাসাজ করা উচিত। এটি lymph প্রবাহ উদ্দীপিত করে, চামড়া মশৃন করে এবং চোখের তলার ফোলাভাব অদৃশ্য করে । পাশাপাশি, আপনি এটা বাড়িতেও করতে পারেন, এটি শেখা কঠিন নয়।

১০। হাতের যত্ন নিন

ঘাড়ের মতনই হাতেরও যত্ন নেওয়া প্রয়োজন কারণ হাতের ত্বকও ঘাড়ের ত্বকের মতন পাতলা এবং সূক্ষ্ম। গ্লাভস পরে কাজ করার চেষ্টা করুন এবং নিয়মিত মশ্চাইরাইজ করার চেষ্টা করুন। আপনি আপনার হাতে এন্টি-এজিং ক্রিম প্রয়োগ করতে পারেন যেমন আপনার মুখে করেন এবং সানস্ক্রিন লাগাতে ভুলবেন না!

১১। প্রতিদিন ত্বক পরিষ্কার করুন

চর্মরোগ বিশেষজ্ঞ ডেবরা জালিমান বলেন যে আপনি মেকআপ লাগিয়ে কখনো বিছানায় যেতে পারেন না। আপনি যদি তা করেন, আপনি আপনার লোম কুপের ছিদ্র বন্ধ করে দেবেন এবং প্রদাহ শুরু হবে । সবসময় নিয়মিত আপনার মুখ পরিষ্কার করুন । এটি ততটাই সোজা যতটা শোনাচ্ছে, কিন্তু তাও অনেকে এখনও এই পরামর্শগুলো অবহেলা করে ।

এটুকুই

লাইক, শেয়ার এবং কমেন্ট করতে ভুলবেন না।

সুস্থ থাকুন, সুন্দর থাকুন ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here