পুতিনের এতো ক্ষমতার গোপন রহস্যে যা রয়েছে

0
39

তর্কযোগ্যভাবে ভ্লাদিমির পুতিন পৃথিবীর সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি।কিন্তু তার এতো ক্ষমতার উৎস কি? সিএনএনের এক প্রতিবেদনে অনুসন্ধান করা হয়েছে ক্ষমতার মহিরুহে পরিণত হওয়া পুতিনের এতো ক্ষমতার উৎস।ক্ষমতার পেছনে পুতিনের মূল অস্ত্র তিনটি।

সাইবার হ্যাকিং পাওয়ার, রাশিয়ার সামরিক শক্তি এবং তাঁর সর্বজনগ্রাহ্য ব্যক্তিত্ব।

এই তিনটি ব্যাপার একত্রে তাকে এমন একটি প্রভাবজাল তৈরীতে সাহায্য করেছে যে এর উপর ভর করে তিনি পরিণত হয়েছেন ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুতে।

সাইবার হ্যাকিং পাওয়ার

মস্কো বরাবরই তাদের বিশেষ হ্যাকিং ক্ষমতার কথা অস্বীকার করে আসছে।তবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তাদের হস্তক্ষেপের অভিযোগের বিষয়টি উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছেনা।বরং এর পক্ষেই মিলছে নানা রকম যুক্তি।যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন ছাড়াও এস্তোনিয়া ও ইউক্রেনের নির্বাচনেও রাশিয়া হস্তক্ষেপ করেছিলো বলে সুস্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে।

রাশিয়া সবসময়ই তাদের হ্যাকিং ক্ষমতার ব্যাপারটি অস্বীকার করে আসছে।তবে সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়ন ভাঙনের আগেই তাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে এরকম সুদক্ষ হ্যাকিং ক্ষমতা সম্পন্ন ইন্জিনিয়ার তৈরী করার উপযোগী করে ডিজাইন করা হয়েছিলো।

রাশিয়ার সামরিক শক্তি

পুতিনের হাতে এতো ক্ষমতা থাকার আরেকটি কারণ পুতিন তার দেশের বিশাল সামরিক বাহিনীর নিয়ন্ত্রনের পুরোটাই রেখেছেন নিজের হাতে।সামরিক শক্তিকে আধুনিকীকরণের জন্যেও প্রতিনিয়তই রাখছেন নানা ভূমিকা।

সর্বজনগ্রাহ্য ব্যক্তিত্ব

পুতিনের ক্ষমতার আরেকটি প্রধান কারণ হচ্ছে নিজ দেশে তার বিশাল জনপ্রিয়তা।তার আচার-ব্যবহার বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে যতোই সমালোচনার উদ্রেক করুক না কেনো রাশিয়ানরা সুযোগ পেলেই পুতিনের ব্যক্তিত্বের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়ে থাকেন।

রাশিয়ানদের অনেকেই বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ ঘটনাপ্রবাহে নিজ দেশের ভুমিকা নিয়ে আগ্রহী।এজন্যে তারা নিষেধাজ্ঞা কিংবা তাদের স্বাভাবিক জীবনমানে আসা যেকোনো আঘাতেরও পরোয়া করেন না।রাশিয়ানদের এরকম সমর্থন পুতিনের ক্ষমতাকে আরো বহুগুণে বাড়িয়ে দিয়েছে।তার সমালোচনা রোধে নিজ দেশের গণমাধ্যমগুলোর প্রতি পুতিন জিরো টলারেন্সের নীতি অবলম্বন করে থাকেন।

স্থবির অর্থনীতির হুমকি উপেক্ষা করেও পুতিন তাই অনেকের চোখেই সারাবিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here